হাঁস মুরগির বাসস্থান কেমন হবে-Has Murgi Ghor

মুরগি পলনের প্রথম ধাপ হল মুরগির বাসস্থান তৈরী করা। অনেকেই মুরগি পালনের আগেই বাসস্থান নিয়ে চিন্তাই থাকেন। হাঁস মুরগির বাসস্থান কেমন হবে, কিভাবে বানাবে এই চিন্তা নিয়ে তাদের সময় নষ্ট করে। তাদের এই চিন্তা কমানো জন্য আমি নিম্নে সুন্দর ভাবে হাঁস মুরগির বাসস্থান তৈরীর নিয়ম,   বাসস্থানের জন্য স্থান নির্বচন এবং  বাসস্থানের জন্য যে সকল বিয়ষ খিয়াল রাখতে হবে তা নিম্নে আলোচনা করা হল।

হাঁস মুরগির বাসস্থান

হাঁস মুরগির বাসস্থান

 

স্থান নির্বাচনঃ হাঁস মুরগির বাসস্থান এমন হয়া উচিৎ যেন সেখানে অতি সহজে সেখান আলো-বাতাস চলা-ফেরা করতে পারে। জমি নির্ধারনের সময় এমন একটি জায়গা বাছতে হবে যাতে সেখানে অতি সহজে যেন পানি না বেধে থাকে। আবশ্যই জায়গাটি যেন উচু ও খোলামেলা হয় সে দিকে দির্ঘ খিয়াল রাখতে হবে।

হাঁস মুরগির বাসস্থান তৈরী করতে যে বিষয় বেশি খিয়াল রাখতে হবেঃ

  • উন্নত জমি যাতে বন্যার সময় ডুবে না যায় তা নির্বাচন করা উচিত।
  • বিদ্যুৎ ও জল সরবরাহের জন্য পর্যাপ্ত সুবিধা থাকতে হবে।
  • অবশ্যই যোগাযোগের ব্যবস্থা রাখতে হবে।
  • মাংস ও ডিম বাজারজাত করার সুবিধা থাকতে হবে।
  • পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা থাকতে হবে।
  • নিকাশী ব্যবস্থা থাকতে হবে।
  • চারপাশটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হওয়া উচিত।
  • একটি উন্মুক্ত এবং নির্জন পরিবেশ থাকতে হবে।

হাঁস মুরগির বাসস্থান তৈরীর নিয়ম

হাঁস মুরগির বাসস্থান তৈরীর নিয়ম

কেন হাঁস মুরগির সুন্দর বাসস্থান তৈরী করতে হবেঃ

  • একটি আরামদায়ক পরিবেশ প্রদান।
  • পোল্ট্রি খারাপ আবহাওয়া থেকে রক্ষা করা।
  • বিভিন্ন ধরণের সংক্রামক ও সংক্রামক রোগ থেকে রক্ষা করা।
  • পশুর আক্রমণ থেকে রক্ষা করা।
  •  চোরের অনুপ্রবেশ থেকে রক্ষা করা।
  •  খাবারের সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্য।

ঘরের যত্ন এবং জীবাণুমুক্ত করণ পদ্ধতিঃ ঘরের জীবাণুমুক্ত করার জন্য চুনের মতো জীবাণুনাশক দ্বারা পরিষ্কার এবং জীবাণুনাশক ঔষধ ব্যবহার করা উচিত। বাড়ির দেয়াল এবং মেঝে জল দিয়ে পরিষ্কার করা উচিত। তবে কস্টিক সোডা দিয়ে পরিষ্কার করা ভাল। ধোঁয়া শুরু করার আগে দরজা, জানালা, ভেন্টিলেটর ইত্যাদি বন্ধ করে দেওয়া উচিত যাতে ঘরে কোন বায়ু প্রবেশ করতে না পারে। বাড়ির প্রতি ২.৮ ঘনমিটার জায়গার জন্য, প্রতি ম্যাঙ্গানেটে ৮ গ্রাম পটাসিয়াম এবং ১২০ মিলি, ফরমালিন (৪০%) দিয়ে ফুমিগেট করুন।

হাঁস মুরগির বাচ্চার বাসস্থানঃ নার্সারি অবশ্যই একটি উঁচু স্থানে উপরে তৈরি করা উচিত যাতে কোনও পরিস্থিতিতে বাড়ির ভিটি ভিজে না যায় বা স্যাঁতসেঁতে না হয়। বাড়ির মেঝে পাকা করা ভাল। শুকনো চালের কুঁচি বা শুকনো কাঠের গুঁড়ো মেঝেতে ২-৩ ইঞ্চি পুরু করে ছড়িয়ে দিতে হবে। নীচে থেকে মেঝে ভিজতে পেতে, প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ২-৩ বার, আপনাকে লিটারটি উল্টাতে হবে এবং চুন মেশাতে হবে। এটি লিটার শুকিয়ে যাবে, জীবাণু মেরে ফেলবে এবং গন্ধ দূর করবে। কোনও পরিস্থিতিতে ঘরের মেঝেতে বৃষ্টির জল যাতে না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যদি কখনও লিটার ভিজে যায় তবে তা ফেলে দিতে হবে । লিটার ভিজা হয়ে গেলে তা ফেলে দিতে হবে এবং তাত্ক্ষণিকভাবে শুকনো লিটার দিতে হবে।

বাচ্চা সংগ্রহের পরে তাদের প্রথমে ভিটামিনের সাথে মিশ্রিত জল দেওয়া উচিত। তারপরে শুকনো খাবার সামান্য দিতে হবে। শিশুকে দিনে কমপক্ষে ৩-৪ বার খাওয়ানো উচিত এবং প্রতিটি শিশুকে ৫-১০ গ্রাম সুষম খাদ্য দেওয়া উচিত । লক্ষ করা উচিত যে একটি ছোট বাচ্চাকে খাওয়ানোর সময়, অবশ্যই প্রথমে জলের পাত্র রাখতে হবে,এবং অবশ্যই জল দিয়ে দিতে হবে কারন শুকনো খাবার শিশুর গলায় আটকে যেতে পারে এবং শিশু মারা যেতে পারে। এক দিনের  বাচ্চাদের জন্য অবশ্যই ব্রুডিং প্রয়োজন। প্রথম সপ্তাহে ঘরের তাপমাত্রা ৪৫  ডিগ্রি ফারেনহাইট হবে, তবে প্রতি সপ্তাহে তাপমাত্রা ৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট হ্রাস করতে হবে। সাধারণত গ্রীষ্মে ২ সপ্তাহ এবং শীতকালে ৩ সপ্তাহ – শিশুকে উষ্ণ করা দরকার। তবে চরম খরা বা প্রচণ্ড শীতে এটি কিছুটা ভিন্ন হতে পারে। বাংলাদেশের অনেক গ্রামাঞ্চলে এখনও বিদ্যুৎ নেই, তবে এটি পর্যাপ্ত পরিমাণে না হলেও, ওই অঞ্চলের ছোট ছোট খামারগুলি ছানা গরম করতে হারিকেন, হাজাকলাইট, কেরোসিন ব্যবহার করতে পারে।

Has Murgi Ghor

Has Murgi Ghor

হাঁস মুরগি ব্যবস্থাপনাঃ স্বাস্থ্যকর এবং রোগমুক্ত মুরগি বা ছানা সংগ্রহ করা প্রয়োজন। মুরগির শেড, মেঝে, দেয়াল, বেড়া, ছাদ, ডিমের বাক্স, ডিমের ট্রে, জলের পাত্রে এবং খাবারের পাত্রে নিয়মিত পরিষ্কার রাখতে হবে। মাঝে মাঝে জীবাণু নাশক  স্প্রে করা উচিত। জীবাণুনাশক মিশ্রিত জল খামারের প্রবেশ পথ এবং মুরগির ঘরের দরজায় রাখতে হবে। অহেতুক যানবাহনকে খামারে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। হাঁস-মুরগিকে পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশে রাখতে হবে। বন্য পাখিদের পোল্ট্রি পালন এলাকায় যাতে না আসতে পারে সে ব্যবস্থ্য নিতে হবে । খাদ্য এবং জলের পাত্রে নিয়মিত জীবাণু নাশক দিয়ে পরিষ্কার করা এবং রোদে শুকানো দরকার। ঘরের লিটার পরিষ্কার এবং মাঝে মাঝে চুন জাতীয় জীবাণু নাশক দ্বারা নির্বীজিত হওয়া উচিত। ঘরের দেওয়াল, মেঝে এবং সরঞ্জাম গুলি জল দিয়ে পরিষ্কার করা উচিত এবং ঘরটি ভালভাবে ধুয়ে ফেলা উচিত।

বিঃদ্রঃ কৃষি তথ্য সার্ভিস, ডিজিটাল ও আধুনিক কৃষি তথ্য বিষয়ে বিভিন্ন সমস্যা ও সমধান সম্পর্কে সঠিক তথ্য পেতে, আপনি আমাদের ওয়েবসাইটAgroHavenBD.com ভিজিট করতে পারেন এবং কমেন্ট করে জানাতে পারেন। এছাড়া আপনার যদি কৃষি সম্পর্কে কিছু তথ্য বলার বা জানার থাকলে, আপনি আমাদেরফেজবুক পেজ বাফেজবুক গ্রুপে যোগ দিতে পারেন।

Tag:- মুরগির বাসস্থান তৈরী, মুরগির বাসস্থান কেমন হবে, দেশি মুরগির বাসস্থান, সোনালী মুরগির বাসস্থান, সোনালি মুরগির বাসস্থান,পাকিস্থানি মুরগির বাসস্থান, লেয়ার মুরগির বাসস্থান, ব্রয়লার মুরগির বাসস্থান, পল্টি মুরগির বাসস্থান, সকল মুরগির বাসস্থান, হাসের বাসস্থান, হাঁসের বাসস্থান, হাঁস মুরগি ব্যবস্থাপনা, হাঁস মুরগির সুন্দর বাসস্থান তৈরী, হাঁস মুরগির বাসস্থান কিভাবে বানাবে, হাঁস বাসস্থান কেমন হবে,

murgi ghor, মুরগির ঘর তৈরি, মুরগির ঘর তৈরির নিয়ম, মুরগীর ঘর, মুরগির ঘর নির্মাণ, মুরগীর ঘর তৈরি, মুরগির ঘর বানানো, মুরগির ঘর কিভাবে বানায়, মুরগির ঘর তৈরি করা, মুরগির খামার ঘর, মুরগির ঘরের ছবি, মুরগির ছোট ঘর, মুরগির ঘর তৈরী,দেশি মুরগির ঘর তৈরি, লেয়ার মুরগির ঘর তৈরি, সোনালি মুরগির ঘর তৈরি, দেশি মুরগির ঘর নির্মাণ, মুরগি পালনের ঘর, মুরগির ঘর ব্যবস্থাপনা, দেশি মুরগির ঘর বানানোর পদ্ধতি, দেশি মুরগির ঘর বানানো, হাঁস পালনের ঘর, হাঁস মুরগির ঘর,

Leave a Comment

Your email address will not be published.